অনুরক্তি অন্তরিক্ষ পর্ব ১৭

894

গল্পের পরের পর্ব পোস্ট করার সাথে সাথে পরতে চাইলে notification অন করে রাখুন ok বাটনে ক্লিক করে

অনুরক্তি অন্তরিক্ষ পর্ব ১৭
তাসনিম তামান্না

আত্মীয় স্বজনরা এখনো যায় নি। জারা শান্তিকে সাইডে নিয়ে গিয়ে বলল
-‘ মনি আমি কিন্তু এ বাসা থেকে চলে যাবো ‘
শান্তি অবাক হয়ে বলল
-‘ ওমা কেনো কি হইছে? কেউ কি কিছু বলছে তোকে? বল কে কি বলছে? তাকে এখন দেখে নিচ্ছি ‘
-‘ ওফ্ফ মনি আমাকে কে কি বলবে করছে তো তোমার গুনধর ছেলে আমাকে জ্বালিয়ে মারছে ‘
শান্তি বেগম চমকে উঠে বলল
-‘ ও কি করছে আবার? ‘
জারা কাঁদো কাঁদো মুখে বলল

-‘ কি করে নি সেটা বলো? কাল রাতে আমার রুমে ছিল আমি ইশার রুমে ছিলাম ইনফেক্ট কাল অনুষ্ঠানে যে শাড়িটা পরছিলাম সেটা কা-চি দিয়ে কেটে রেখে কোথায় চলে গেলো। আমার রুমটা এলোমেলো করে রাখছে। আমার আর ভালো লাগছে না মনি আমি চলে যাবো কিন্তু বলে দিলাম’
শান্তি বেগম অবাক হয়ে গেলো মনে মনে খুশি হলেও মুখে বলল
-‘ মানে? ও এগুলো করছে? ‘
-‘ তা আর বলতে মনি তোমার ছেলে আমাকে খুব জ্বালাছে আমি কিন্তু চলে যাবো ‘
-‘ এমন করিস না মা আমার আচ্ছা আমি ওকে বকে দিবো খুশি ‘
-‘ না আর বলে দিবে আমার পিছনে যেনো না লাগে বলে দিলাম ‘

আরও গল্প পড়তে আমাদের গ্রুপে জয়েন করুন

জারা নিজে নিজে বকবক করতে করতে চলে গেলো। শান্তি বেগম হাসলেন হেসে বললেন ‘পাগল দুইটা ‘
জারা রুমে গিয়ে রুম পরিষ্কার করলো কাঁ-চি দিয়ে কাটা শাড়িটা একবার হাত বুলালো এই শাড়ি প্রিয় ছিল সেটাই নষ্ট হয়ে গেলো।
আসলে প্রিয়/ পছন্দের মানুষ বা বস্তু কখনো থাকে না। সেগুলোই সবার আগে নষ্ট হয়ে যায়।
জারা দীর্ঘ শ্বাস নিয়ে গুছিয়ে নিলো সবটা।

সকালে নাস্তা করে অনেক আত্মীয় স্বজনরা চলে গেছে। রয়ে গেছে মামাবাড়ির সবাই ১৫ দিন পর বিয়ে এখন থেকে সবাই সব প্লান শুরু করে দিসে। কে কি পড়বে, কে কিভাবে সাজবে, কে কিভাবে নাচবে আরও কত কি! ইশা মন খারাপ করে রুমে বসে রইলো জারা গেলো ইশাকে দেখতে শান্তি রান্নাঘরের দিকটা দেখছে এতোজনের খাবার ব্যবস্থা করতে হবে। জারা ইশার রুমে গিয়ে দেখলো ইশা জানালা ধরে মেঘলা আকাশ পানে উদাসীন চোখে তাকিয়ে আছে। জারা অবাক হলো ইশার এমন মন মরা অবস্থা দেখে। অবাক হবারই কথা ইশা হাসি খুশি প্রাণ উচ্ছল মেয়ে। তার মন খারাপ কারোরই সহ্য হবে না। জারা ইশাকে ডাকলো

-‘ ইশা!….. তোমার কি মন খারাপ? ‘
ইশা চমকে জারাকে দেখে কৃত্রিম হাসি দিয়ে বিছানায় বসে জারা কেউ বসিয়ে বলল
-‘ আপু তুমি! আরে না কি যে বলো আমার আবার মন খারাপ ‘
-‘ আমি জানি তোমার মন খারাপ বিয়েতে আমাদেরকে ছেড়ে চলে যাবে সে জন্য তাই না? ‘
ইশা ছলছল চোখে তাকালো জারার দিকে জারা দু-হাত বারিয়ে দিলো ইশা আর নিজেকে ধরে রাখতে পারলো না হাওমাও করে কেঁদে উঠলো। মন খারাপের সময় যখন কেউ আদুরে কন্ঠে কথা বলে ওপর ব্যক্তিটা আবেগপ্রবণ হয়ে কেঁদে দেয়। জারা ইশার মাথায় হাত বুলিয়ে দিলো কিছু বলল না ইশা কান্না থেমে গেলে জারা বলল
-‘ এভাবে কাঁদলে হয় না-কি? তোমার বিয়ে হচ্ছে তোমার ভালোবাসার মানুষের সাথে তুমি নাচতে নাচতে গাইতে গাইতে বিয়ে করবে তা না তুমি কাঁদছ? আর তুমি মন খারাপ কেনো করছ বলতো তুমি যখন খুশি তখন এবাড়িতে আসবে কোনো বাঁধা নাই। ‘

-‘ কিন্তু তোমাদের খুশিতে নাচ দেখে মনে হচ্ছে আমাকে বিদায় দিতে পারলে তোমরা খুশি ‘
জারা অবাক হয়ে আকাশ থেকে পড়ল
-‘ মানে? আমরা কখন নাচলাম? এই ইশা বল তো কি হয়েছে এতোক্ষণ ভালোভাবে কথা বলছিলাম সহ্য হয়নি তোর? ‘
-‘ হ্যাঁ হ্যাঁ জানি জানি আমি তোমাদের কেউ না আমাকে বিদায় করতে পারলেই বাঁচো? ‘।
-‘ তুই এসব কি বলছিস? কি হয়েছে বলতো?’
-‘ কি আর হবে? ভাইয়া তো বলল আমার বিয়ে হলে পুরো বাড়ি ওর আমি না-কি ওকে জ্বালায় আমি না থাকলে ওর শান্তি আর দেখো সকলে নিচে বিয়েতে নাচ, গান, সাজ নিয়ে কথা বলছে সবাই আমার দিকে কারোর খেয়াল নেই ‘
জারার হাসি পেলো কিন্তু হাসলো না বলল

-‘ দূর পাগলি চল নিচে চল এনজয় কর এসব কারনে কেউ মন খারাপ করে আর তোর ভাই আস্ত শ-য়-তা-ন কি করেছে জানিস? ‘
ইশা সোজা হয়ে বসে চোখ মুখ মুছে বলল
-‘ আমার সাধের শাড়িটা কাঁ-চি দিয়ে কেটে নষ্ট করে দিসে। যেটা তোর এনগেজমেন্টে পরছিলাম সামনে পেলে কি যে করবো আমি নিজেও জানি না। ‘

ইশা ঝংকার তুলে হেসে উঠলো। জারাও হাসলো। জারা ইশাকে নিয়ে নিচে চলে গেলো।
সারাদিন আর শানের দেখা মিললো না। সন্ধ্যায় সবাই নিচে ড্রাইংরুমে বসে নাস্তা আর আড্ডা দিচ্ছে। জারাও আড্ডায় যোগ দেওয়ার জন্য রুম থেকে বের হতেই শানকে ফোন টিপতে টিপতে এদিকেই আসছে। জারার মাথার আগুন ধপ করে জ্বলে উঠলো। হাত মুষ্টি বদ্ধ করে শানের দিকে এগিয়ে গিয়ে বলল
-‘ আপনার সাহস তো কম না আমার রুমে থেকে আমার রুম নোংরা করে আমার ফেভারেট শাড়ি কেটে শেষ করে দিলেন কেমন লোক আপনি? ‘

শানের চলন্ত পা থেমে গেলো ফোন থেকে চোখ তুলে জারাকে রেগে তাকিয়ে থাকতে দেখে মুখে বাঁকা হেসে বলল
-‘ আমি বারণ করছিলাম শুনিস নি তার ফল এটা ‘
-‘ তাই বলে শাড়িটা নষ্ট করে দিবেন? এমন করছেন কেনো আপনি? ‘
-‘ আমার কথা না শুনলে ওমন হবে ‘
-‘ কে আপনি? কোন দেশের প্রেসিডেন্ট যে আপনার কথা শুনতে হবে ‘
-‘ আমি তোর প্রেসিডেন্ট! ‘
-‘ মানে?’
-‘ ওতো মানে জানতে হবে না। তুই না-কি আমাকে সামনে পেলে কিস করবি বলেছিস ইশাকে ‘

জারা অবাক হয়ে লজ্জায় কান গরম হয়ে মুখে রক্তিম আভা ফুটে উঠলো। মনে মনে ইশাকে ইচ্ছা মতো ধুয়ে দিলো। জারার মনে হচ্ছে এখনি মাটিটা ফাঁক হোক আর ও ঢুকে পরুক।
শান জারার দিকে ঝুঁকে গেলো জারা পিছিয়ে গেলো। শান বলল
-‘ লজ্জা পাচ্ছিস না-কি? ‘
জারা রাগি দৃষ্টিতে তাকিয়ে বলল
-‘ আপনার সাথে ফাউল প্যাচাল পাড়ার টাইম নাই ‘
কথাটা বলে জারা আর একদণ্ড দাঁড়ালো না এক প্রকার ছুটে পালিয়ে গেলো। শান ঠোঁট চেপে হাসালো।

অনুরক্তি অন্তরিক্ষ পর্ব ১৬

সকালে সূর্যের রক্তিম আলো চারিদিকে আলোকিত বেশ বেলাও হয়ে গেছে সকলে বসে চা খাচ্ছে আর গল্প করছে। জারা নিজেও আছে। রান্না ঘরে শান্তি আর মামিদের কাজে হেল্প করতে গেছিল সেই লেভেলের ঝাড়ি খেয়ে এখন মুখ গোমড়া করে চায়ের কাপে চুমুক দিচ্ছে। শান মুচকি মুচকি হেসে চলেছে।
হঠাৎ ঝংকার তুলে ফোন বেজে উঠলো জারার। ফোন কানে নিয়ে এমন কথা শুনে জারার হাতে পায়ে কম্পন শুরু হয়ে গেলো।

অনুরক্তি অন্তরিক্ষ পর্ব ১৮

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here