গোধুলির শেষ বিকেলে তুমি আমি পর্ব ২৮

গোধুলির শেষ বিকেলে তুমি আমি পর্ব ২৮
Raiha Zubair Ripti

মধ্য দুপুরে শাফায়াত এসেছে পুরো ফ্যামিলি নিয়ে বসুন্ধরা শপিংমলে। শারমিন বেগম মেয়েকে বিয়ের শাড়ি সিলেক্ট করে দিচ্ছে। রুয়াত দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে তা দেখছে। সাদমান আর শাফায়াত গিয়েছে পুরুষদের মলের দিকে। সাদমান নিজের জন্য পাঞ্জাবি, শার্ট প্যান্ট,জুতা,ঘড়ি, পারফিউম কিনে নিলো। এদিকে শাফায়াত একটা কিছুও নিজের জন্য চুস করতে পারছে না। সাদমান তার জিনিস গুলো কাউন্টারে দিয়ে শাফায়াত এর দিকে এগিয়ে এসে বলল-

-“ হলো তোমার ব্রো?
শাফায়াত জুতা দেখতে দেখতে বলল-
-“ এখনও হয় নি। কিছুই পছন্দ হচ্ছে না।
-“ আমি পছন্দ করে দিব?
-“ দে দেখি।
সাদমান ঘুরে ঘুরে পাঞ্জাবি শার্ট, প্যান্ট জুতা,চুস করে দিলো। শাফায়াত এর তেমন পছন্দ হলো না। তবুও সময় ওয়েস্ট হবে ভেবে সাদমান এর পছন্দ করে দেওয়া গুলোই নিয়ে নিলো। তারপর বিল পে করে চলে আসলো রুয়াত দের কাছে।

আরও গল্প পড়তে এখানে ক্লিক করুন 

রুয়াত নিজের জন্য এখনও কিছু কিনে নি। তার শ্বাশুড়ি আর ননদেরই এখনও কেনা হয় নি। তবে এদিক ওদিক চোখ বুলিয়ে দেখছে। শারমিন বেগম রুয়াত কে তার পাশে বসে থাকতে দেখে বলে উঠল-
-“ তুমি বসে আছো কেনো রুয়াত? যা পছন্দ হয় নিয়ে নাও।
রুয়াত উঠে দাঁড়ালো। এই দোকানে থাকা পিংক কালারের একটা শাড়িতে চোখ আঁটকে যায় রুয়াতের। রুয়াত দোকানদার কে বলে শাড়ি টা দেখাতে। দোকানদার শাড়ি টা বের করে মেলে ধরে। রুয়াত শাড়ি টা ছুঁয়ে দেখে। হঠাৎ পেছন থেকে ভেসে আসলো-

-“ শাড়ি টায় দারুন মানাবে তোমায়।
রুয়াতের ওষ্ঠে হাসি ফুটলো। সহসা পিছু ফিরলে শাফায়াত এর বুকে গিয়ে ঠেকলো রুয়াতের পিঠ।
-“ সত্যি মানাবে আমায়?
-“ অবশ্যই।
-“ শাড়ি টা প্যাক করুন। আচ্ছা আপনি কি কিনলেন নিজের জন্য?
শাফায়াত হাতের প্যাকেট গুলো দেখিয়ে বলল-
-“ সাদ পছন্দ করে দিলো। আমার চয়েস ভীষণ বাজে। তবে ভুল করে হলেও তোমার শাড়ির সাথে আমার পাঞ্জাবি ম্যাচিং হয়েছে।

-“ ম্যাচ না হলেও আমি ম্যাচিং করে ঠিক আবার পাঞ্জাবি কিনাতাম।
শাফায়াত হাসলো। মায়ের দিকে তাকিয়ে বলল-
-“ তোমার শ্বাশুড়ি ননদের এখনও কেনা শেষ হয় নি দেখছি।
-“ হ্যাঁ।
-“ তা তোমার কেনা শেষ?
-“ হু।
-“ জাস্ট একটা শাড়ি তেই হয়ে গেলো!
-“ আর কি কিনবো?
-“ আশ্চর্য গায়ে হলুদ বউভাত তার জন্য কিনবা না? জামাইয়ের টাকা বাঁচাতে চাইছো নাকি আমি কিপ্টে কোনটা?
পাশ থেকে সাদমান বলে উঠল-

-“ রুয়াত ব্রো এর মন কিন্তু অনেক বড় বুঝলে। তোমার যা পছন্দ হয় সব লুফে নাও আমার মতো।
রুয়াত আর দুটো শাড়ি নিয়ে নিলো। শাফায়াত সাদমানের কানের কাছে মুখ নিয়ে বলল-
-“ সামনে তো তুই ও করবি বিয়ে। তোর বিয়েতে আমি আর রুয়াত তোকে ফতুর বানিয়ে ছাড়বো।
সাদমান হাই তুলতে তুলতে বলে-
-“ আমি বিয়ে করবো এক কাপড়ে কোর্টে গিয়ে। নো অনুষ্ঠান নো শপিং।
শাফায়াত সাদমানের কান টেনে ধরে বলে-

-“ তুই তো হাড়কিপটে।
-“ সে তো আমি আগে থেকেই। এখন কান ছাড়ো। মানসম্মান রাখবে না দেখছি লোকজনের সামনে।
শাফায়াত কান ছেড়ে দিলো। কেনাকাটা শেষে সন্ধ্যার সময় হাল্কা পাতলা খানাপিনা করে বাসায় আসে সবাই।
রুয়াত বাহির থেকে এসেই ওয়াশরুমে ঢুকে যায় গোসল সারতে। বিছানা জুড়ে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে শপিং ব্যাগ। শাফায়াত সেগুলো এক এক করে আলমারি তে রেখে দেয়। শরীর চুলকাচ্ছে ভীষণ। গোসল না করলেই নয়। ওয়াশরুমের দরজায় গিয়ে টুকা দিলো শাফায়াত। রুয়াত ভেতর থেকেই বলে উঠল-

-“ কি?
-“ একটু খুলো তো।
-“ কেনো?
-“ এক নম্বর পেয়েছে।
-“ আমার গোসল শেষ হোক তারপর।
-“ আরে ততক্ষণ চেপে রাখতে পারবো না। বেরিয়ে আসবে।
-“ তাহলে সাদমান ভাইয়ার রুমে যান।
-“ আশ্চর্য একটু খুলো। আমি কি বাহিরের লোক? তোমার স্বামী ই তো খুলো।
রুয়াত একদম ভেজা জামাকাপড় চেঞ্জ করে শুকনো জামাকাপড় পড়ে দরজা খুলে। শাফায়াত ভেতরে ঢুকতে নিলে রুয়াত বেরিয়ে আসে। অবাক হয়ে বলে-

-“ বেরিয়ে আসলে কেনো?
রুয়াত টাওয়াল দিয়ে মাথার চুল মুছতে মুছতে বলল-
-“ আপনিই তো তাড়া দিলেন সেজন্য।
-“ আশ্চর্য আমি জাস্ট দরজা টা খুলতে বলেছি। তোমাকে বের হয়ে আসতে বলি নি।
-“ আমি বের না হলে আপনি হিশু করবেন কিভাবে?
শাফায়াত চোখ ছোট ছোট করে বলল-

-“ আমি কখন বললাম আমি হিশু করবো?
-“ কেনো আপনিই তো বললেন আপনার এক নম্বর পেয়েছে। আর এক নম্বর মানেই তো ওটা।
-“ ইডিয়ট। বুঝিয়েছি আমার প্রেম পাচ্ছিলো।
রুয়াত ভ্রু কুঁচকে তাকালো। রেগে বলল-
-“ এক নম্বর মানে প্রেম?
-“ হু।
-“ আপনার মাথা, গরু একটা।

শাফায়াত হাত টেনে রুয়াত কে কাছে আনলো। ঘাড়ে মুখ গুঁজে দিয়ে নেশালো কন্ঠে বলল-
-“ ছ্যাত করে উঠো কেনো রমণী, আমার হৃদয়ে আগুন জ্বালিয়ে?
রুয়াত শাফায়াত এর থেকে নিজেকে ছাড়াতে ছাড়াতে বলল-
-“ মেয়েদের কাজই পুরুষের হৃদয়ে আগুন জ্বালিয়ে দেওয়া।
-“ নিভানোর শেষ ক্ষত স্থানে মলম টাও তো লাগিয়ে দেওয়া মেয়েদের কাজের মধ্যেই পড়ে।
-“ উমম মন্দ বলেন নি তা। তবে আমি তো মলম লাগাতে জানি না। আমি আগুনে আরো ঘি ঢেলে দিতে জানি। জানেন কি করে সেটা?

-“ কি করে?
রুয়াত শাফায়াতের মুখ দু হাতে ধরে কাছে টেনে আনলো। দুজনের মুখ ছুঁয়ে যাচ্ছে একে ওপরের মুখের সাথে। রুয়াত ঠোঁট কামড়ে তারপর শাফায়াত এর ঠোঁটে চুমু খেয়ে কামড় বসিয়ে দিলো।
শাফায়াত ব্যথায় চোখ খিঁচে ধরলো। তবে ছাড়লো না রুয়াত কে। আগের তুলনায় শক্ত করে চেপে ধরলো এবার কোমড় টা।

রুয়াত ছেড়ে চলে আসতে নিলে শাফায়াত চেপে ধরে ঠোঁট। মিনিট দশেক পর মনের খায়েশ মিটলে ছেড়ে দেয় রুয়াত কে। ওয়াশরুমের দিকে যেতে যেতে বলে যায়-
-“ আগুনে ঘি ঢাললে তার তেজ তো সইতেই হবে বউ। বাকিটা রাতে কাছে আসলে পুষিয়ে নিব।
রুয়াত ওড়নার আঁচল দিয়ে ঠোঁট মুছে বলে-

-“ আপনার কাছে আজ আসবোই না। সানজিদার রুমে গিয়ে ঘুমাবো।
-“ আই হ্যাভ নো প্রবলেম। সানজিদা কে আমার রুমে পাঠিয়ে দিব। আর আজ বাদে তো কাল সানজু চলেই যাবে।
-“ ওর সাথে সাথে আমিও চলে যাব আমার বাপের বাড়ি।
-“ ঘর জামাই হয়ে থাকলে তোমার বাপ জানেরই মানসম্মান যাবে আমার না।
-“ ঢুকতেই দিব না আমাদের বাসায়।
-“ তাহলে আর কি পটুয়াখালী যেতে হবে জব….
-“ জা’নে মে’রে রেখে দিব ব এর পরে আকার টা উচ্চারণ করলে।

শাফায়াত হেঁসে ওয়াশরুমের দরজা বন্ধ করে দিলো।
ছাঁদের দোলনায় বসে রোহান। সামনেই টেবিলে বিভিন্ন রকমের বিদেশি ড্রিংকস। নেহাল আর রবিন ড্রিংকস ঢালছে গ্লাসে। রোহান নির্নিমেষ চোখে চেয়ে আছে আকাশে।
নেহাল ড্রিংকস এর গ্লাস টা বাড়িয়ে দিলো রোহানের। রোহানের সেদিকে হুঁশ নেই। নেহাল মৃদু ধাক্কা দিলো। রোহান হুঁশে ফিরলো। গ্লাস টা হাতে নিয়ে কিয়ৎ ক্ষন তাকিয়ে থেকে বলল-
-“ জীবনে আমাদের কিসের পেছন ছোটা উচিত নেহাল?
নেহাল ড্রিংকস এ চুমুক দিয়ে বলল-

-“ জীবন নিজ থেকে যা দিবে সেটার পেছন।
-“ তার মানে যেটা দিবে না সেটা পাওয়ার চেষ্টা করবো না আমরা?
-“ উমমম চেষ্টা করে কি লাভ? পাওয়ার হলে তো সেটা পেয়েই যেতাম আমরা।
-“ কেনো কথাতেই আছে একবার না পাড়িলে করো শতবার।
-“ শতবার করা মানে টাইম লস্ট বই আর কিছু না। শতবার চেষ্টা করার পর ও যখন অসফল দেখা দেয় তখন সময় চেষ্টা দুটোই বৃথা হবে। তাই সর্বোচ্চ গেলে তিন-চার বার চেষ্টা করা উচিত কোনো কিছুর পেছন। বাট বারবার না।
-“ হুমম বুঝলাম। বিয়ে করছিস কবে তা?
-“ খুব শীগ্রই। সুইটির এক্সাম টা শেষ হোক তারপর।
-“ যে ব্যক্তি তার ভালোবাসার মানুষটিকে জীবন সঙ্গী হিসেবে পায়। আই থিংক সে পৃথিবীর সবচেয়ে সুখী মানুষ। তাই না?

-“ আর যারা খাঁটি ভালোবাসা পেয়েও হারিয়ে ফেলে মরিচীকার পেছন ছুটে। ট্রাস্ট মি তার মতো দুর্ভাগা কেউ নেই পৃথিবীতে।
রোহানের মুখে তাচ্ছিল্যের হাসি ফুটলো।
-“ সেই দূর্ভাগাদের কাতারে কি করে যেনো নাম দিয়ে ফেললাম আমি তাই না?
-“ সেটা আবার জিজ্ঞেস করছিস?
-“ করলামই না হয় একটু জিজ্ঞেস। এখন করণীয় কি আমার?
-“ কি করণীয় তা তুইই জানিস রোহু। তবে বললব- আমরা তাদের কে ভালোবাসবো যারা আমাদের কে ভালোবাসে। এমন কাউকে ভালোবাসবো না যাদের ভাবনার মাঝে ক্ষনিকের জন্য ও আমরা নেই।

-“ এটা করতে গেলে তখন সর্বপ্রথম তুইই আমার দিকে আঙুল তুলবি নেহাল।
-“ তুললে তুলবো। তুই চুপচাপ শুনে যাবি। দোষ করেছিস আর বললে শুনবি না তা?
-“ আমি তো শুনতে নারাজ।
-“ তাহলে রুমে গিয়ে বসে বসে মুড়ি দিয়ে ড্রিংসক খা যা শা’লা।
-“ আজকের ড্রিংকস এর টেস্ট এমন বাজে কেনো?
-“ কারন তর মন যে ছ্যাকা খেয়ে ভালো মন্দ বুঝতে ভুলে গেছে সেজন্য। এখন চুপচাপ মা’ল গিল আর তা না হলে রুমে যা।

-“ বউ এনে দে রুমে গিয়ে শুয়ে থাকি।
-“ বিয়ে কর গা, বউ পাবি।
-“ মেয়ে দিবে না কারো বাপ।
-“ ভিক্ষা কর। ফিতরা হিসেবে দিয়ে দিবে।
-“ সাইফুল ইসলাম এর বাড়ির সামনে গিয়ে দাঁড়াতে হবে। বলতে হবে সামনে ঈদ ফিতরা যেনো দেয় আমাকে।
-“ ফিতরা তোমার পা*ছা দিয়ে দিবে আমার বাপ।
-“ যেখান দিয়েই দিক,তবুও দিক।

-“ হেই মিস রজনী আমি কি খুব দেরি করে ফেলছি আসতে?
রজনী হাত ঘড়িটার দিকে তাকিয়ে দেখে সাদমান লেট করেছে আসতে গুনে গুনে বিশ মিনিট।
সাদমান গাড়ির দরজা খুলে ঢুকতে ইশারা করলো রজনী কে। সাদমান কে আজ পাঠিয়েছে রুয়াত রজনী কে নিয়ে আসার জন্য। বিয়ে বাড়ি বলে কথা। রজনীর বাবা মা বিয়ের দিন আসবে।
রজনী উঠে বসলো গাড়িতে। সাদমান গাড়ি স্টার্ট দিলো। সাউন্ড বক্সে বাজালো- এই পথ যদি না শেষ হয় তবে কেমন হতো তুমি বলোতো?

রজনীর বেশ ভালো লাগে এসব গান। কেমন একটা আগের দিনের ভাইব আসে মনে। নব্বই দশকের ফিল হয়। সাদমান গাড়ি চালানোর ফাঁকে ফাঁকে বারবার রজনী কে দেখছে। রজনীর নজরে আসলো সেটা। চোখ বন্ধ করে বলল-
-“ পূর্ণ দৃষ্টি সামনে দিয়ে গাড়িটা ঠিকঠাক চালান। এদিক থেকে ওদিক হলেই সোজা পটল তুলতে উপরে চলে যেতে হবে।
সাদমান এক হাত দিয়ে মাথার চুল টেনে বলে-

-“ সমস্যা কি তাতে। উপরেই না হয় আপনি আর আমি একত্রে পটল তুলবো। সেই পটল বেচে সংসার চালাবো। ছোট্ট একটা ঘর বানাবো। সেখানে আপনি আর আমি বসবাস করবো।
-“ আপনাকে কিছু বলা যায় না। বললেই সেটাকে তাল থেকে তিল বানিয়ে সেম প্রেম ভালোবাসার দিকেই চলে যান।
-“ জীবনে এই দুটো ছাড়া আর কি আছে? প্রেম ভালোবাসা ছাড়া মানুষ বাঁচে নাকি?
-“ আপনি বেঁচে আছেন কেনো এখনও তাহলে?

-“ আপনার থেকে সাড়া পাওয়ার জন্যই তো বেঁচে আছি। আপনি সাড়া দিন আমার ডাকে। দেখুন জীবনে থাকা অবশিষ্ট দিন গুলো ভালোবাসায় রাঙিয়ে দিব।
-“ আপনি সিরিয়াস আমাকে নিয়ে?
-“ আজ জিজ্ঞেস করছেন সেটা!
-“ আমার ব্যপারে সব জানলে নিশ্চয়ই আর সিরিয়াস হবেন না।
-“ যা জানার জেনে নিয়েছি। আর জানতে চাই না।
-“ কি কি জেনেছেন?

গোধুলির শেষ বিকেলে তুমি আমি পর্ব ২৭

-“ সেটা সিক্রেট। আপনি রাজি হয়ে যান শুধু।
-“ রাতে ছাঁদে আসবেন কেমন? কিছু কথা বলবো।
-“ আমি এতো কিছু শুনতে চাই না। হ্যাঁ টা শুনতে চাই, না টা না আবার।
-“ রাতে আসবেন তখনই জানাবো আমার ডিসিশন টা।
-“ আচ্ছা। আমি সন্ধ্যা থেকেই ছাঁদে অপেক্ষা করবো। আপনি চলে আসবেন চটজলদি ওক্কে?

গোধুলির শেষ বিকেলে তুমি আমি পর্ব ২৯