বিষাক্তফুলের আসক্তি পর্ব ২২

1843

গল্পের পরের পর্ব পোস্ট করার সাথে সাথে পরতে চাইলে notification অন করে রাখুন ok বাটনে ক্লিক করে

বিষাক্তফুলের আসক্তি পর্ব ২২
লেখনীতেঃ তাহমিনা তমা

স্যার আগে হোটেলে যাবেন নাকি জমি দেখতে ?
তাজ দৃষ্টি বাইরে রেখেই বললো, আগে হোটেলে চলো। ফ্রেশ হয়ে বিকেলে প্রোপার্টির মালিকের সাথেই যাবো।
ঠিক আছে স্যার।

হোটেলে গিয়ে আগে ফ্রেশ হয়ে নিলো তাজ। দুপুরের লাঞ্চের সময় হয়েছে তাই ফোন করে খাবার রুমে দিয়ে যেতে বললো। খাবার খেয়ে লম্বা একটা ঘুম দেবে ভেবে নিলো।
ভেজা চুল মুছতে মুছতে বেলকনিতে গিয়ে দাঁড়ালো। ঢাকা আর সিলেট শহরের তফাৎ অনেক, ঢাকায় বড় বড় দালানকোঠার দেখা মিললেও গাছের দেখা মেলা দুষ্কর। কিন্তু সিলেট শহরে দালানকোঠার সাথে আছে সবুজ গাছের সতেজতা। গত পাঁচ বছরে রায়হানের সাথে অনেকবার দেখা করেছে তাজ শুধুমাত্র তিতিরের ঠিকানা জানার জন্য। রায়হান প্রতিবার একটু একটু করে বলেছে তাজকে, কখনো সম্পূর্ণ বলে না। হয়তো তাজকে এভাবে তড়পাতে দেখতে ভালো লাগে রায়হানের। রায়হান বলেছে তিতির সিলেটের মেয়ে, তার জন্ম এই সিলেট জেলায়, বাবা-মায়ের সাথে শৈশবও কেটেছে এখানে। কিন্তু বাবা-মা খু*ন হওয়ার পর তিতিরের জীবনটা এক ঝটকায় এলোমেলো হয়ে গেছে। তাজের কাছে এখনো অনেক প্রশ্ন রয়ে গেছে, তিতিরের বাবা-মা খু*ন হয়েছিলো কীভাবে ? রায়হানের বাবা-মা কোথায় ? রায়হানের বাবার শাস্তি কেনো হয়নি এখনো ? রায়হান তো সব বলে দিয়েছে সবার সামনে। তিতির এখন কোথায় আছে আর তিতিরের বাবার বাড়ি সিলেটের কোথায় ? এমন অনেকগুলো প্রশ্নের উত্তর এখনো পাওয়া বাকি তাজের। সিলেট আসলে তাজ নিজের অজান্তে খোঁজে তিতিরকে। যদিও জানে সেটা নেহাৎ বোকামি ছাড়া কিছু নয় কারণ গত পাঁচ বছরে গোটা সিলেট তন্নতন্ন করে খুঁজেছে তিতিরকে। সে যদি এখানে থাকতো তবে পেয়ে যেত তাজ। তাজ এটুকু বুঝতে পেরেছে তিতির আহানের কাছেই আছে কিন্তু আহানের কোনো তথ্য দেয়নি রায়হান। রুমের কলিংবেল বাজলে তাজ বুঝলো খাবার চলে এসেছে।

আরও গল্প পড়তে আমাদের গ্রুপে জয়েন করুন

সিলেটের শাহজালাল মাজার চিনে না এমন মানুষ হয়তো সারা বাংলাদেশে খোঁজে পাওয়া যাবে না। মাজারের সামনে যত অসহায় মানুষ আছে সবার হাতে খাবার তুলে দিচ্ছে ছোট্ট ধ্রুব। আহান ধ্রুবকে কোলে নিয়ে তার হাতেই সবাইকে খাবার দিচ্ছে।
আহানের চোখে ভেসে উঠলো আজ থেকে প্রায় ছয় বছর আগের দৃশ্য। তিতির যাওয়ার আগে তার বাবা-মায়ের কবর আর শাহজালালের মাজার দেখে যেতে চেয়েছিলো। আহান দুটো জায়গায় নিয়ে গিয়েছিলো তিতিরকে।
মাজার থেকে বের হতেই ছোট্ট এক বাচ্চা হাত টেনে ধরলো তিতিরের।
বাচ্চাটা সিলেটের ভাষায় বললো, পেটর মাঝে যে বুক করের।
তিতির হাঁটু গেড়ে বসলো বাচ্চাটার সামনে, নাম কী তোমার ?

বাচ্চাটা কিছু না বলে তাকিয়ে আছে তিতিরের দিকে, যেনো বুঝতে পারেনি তার কথা। তিতির বাচ্চাটাকে আর কিছু না বলে সামনের একটা হোটেলে নিয়ে গেলো। নিজের ইচ্ছে মতো খাবার অর্ডার করে খাইয়ে দিলো। খাওয়া শেষে বাচ্চাটার হাতে কিছু টাকাও দিয়ে দিলো।
বাচ্চাটা হাসিমুখে চলে গেলে তিতির নিজের পেটের উপর হাত রেখে আনমনে বললো, হে আল্লাহ আমার বাচ্চাটাকে তুমি সুস্থভাবে পৃথিবীর আলো দেখাও। আমি তার প্রতি জন্মদিনে এখানকার অসহায় মানুষদের একবেলা পেট ভড়ে খাওয়াবো।
আহান তিতিরের পাশেই ছিলো তাই তিতিরের কথাটা শুনতে অসুবিধা হয়নি তার। তিতির নেই তাই তার কথা রাখতে হলেও আহান ধ্রুবর প্রতি জন্মদিনে তার হাতেই এখানকার অসহায় মানুষদের একবেলা পেট ভরে খাওয়ায়।

ক্লান্ত হয়ে সবাইকে নিয়ে বাড়ি ফিরলো আহান। ফ্রেশ হয়ে সবাই রেস্ট নিচ্ছে, আজ আর কোথাও যাবে না। আগামীকাল সবাইকে নিয়ে বেড়াতে যাবে ঠিক করেছে।
পরদিন সকালে ব্রেকফাস্ট করে সবাইকে নিয়ে ঘুরতে বের হলো আহান। শীতের দিন চারপাশের কুয়াশা এখনো কাটেনি, চা বাগানের মাঝ দিয়ে ধীর গতিতে গাড়ি এগিয়ে চলেছে আহানদের।
ন্যান্সি বললো, এই কুয়াশায় বাইরে গেলে ধ্রুবর ঠান্ডা লাগবে তো আহান।
আহান ধ্রুবকে মাস্ক পড়িয়ে বললো, গরম কাপড় পড়িয়ে নিয়েছি আর মুখেও মাস্ক থাকবে, কিছু হবে না।
পাখি বললো, তুমি সবসময় ধ্রুবকে কোলে নাও। আমিকে নাও না কেনো ?
কেঁশে উঠলো আহান। মেয়েটা হঠাৎ এমন এমন কথা বলে লজ্জায় পড়তে হয় আহানকে।
আহান হালকা ধমক দিয়ে বললো, তুমি কী ধ্রুবর সমান ?
ঠোঁট ফুলালো পাখি যেনো এখনই কেঁদে দিবে, আমি নাহয় ধ্রুবর থেকে একটু লম্বা তাতে কী হয়েছে ?
আহান ধমক দিয়ে বললো, তুমি চুপ করবে পুতুল?

এবার কেঁদেই দিলো পাখি, আমাকে কেউ আদর করে না। আমি থাকবো না তোমাদের সাথে, আমাকে নামিয়ে দাও আমি থাকবো না।
আহান কপাল কুঁচকে বললো, মহা মুশকিল তো।
পাখি চেঁচামেচি করে বললো, ড্রাইভার আঙ্কেল গাড়ি থামান নাহলে আমি এমনই দরজা খোলে নেমে যাবো।
বিষম খেলো ড্রাইভার রবি। আহানের থেকেও বছর দুয়েকের ছোট হবে সে আর পাখি তাকে আঙ্কেল বলছে।
পাখি দরজা খোলার চেষ্টা করলে আহান বললো, রবি গাড়ি থামাও তো। নাহলে এই পাগল সত্যি সত্যি নেমে যাবে চলন্ত গাড়ি থেকে।
এবার ভ্যা ভ্যা করে কাঁদতে লাগলো পাখি, মাম দেখো আমাকে আবার পাগল বলেছে। আমি কী পাগল ?
ন্যান্সি অসহায় গলায় বললো, কী করছো মাই সান ? এভাবে ওকে ডেস্পারেট করলে সামলানো মুশকিল হবে আমাদেরই।
গাড়ি থামাও রবি।

এক সাইডে গাড়ি থামালো রবি। আহান ধ্রুবকে কোলে নিয়ে নেমে গেলো গাড়ি থেকে। পাখি দরজা খোলার চেষ্টা করছে কিন্তু পারছে না। আহান এসে দরজা খোলে দিলো আর পাখি নেমে গেলো। আহান ধ্রুবকে গাড়ির ভেতরে ন্যান্সির কোলে দিলো।
ধ্রুব এতক্ষণে বললো, মাম্মাম কাঁদে কেনো গ্রানি ?
ন্যান্সি মুচকি হেসে বললো, মাম্মাম রাগ করেছে।
মাম্মাম কেনো রাগ করেছে ?
তুমি একাই সবসময় পাপার কোলে উঠে বসে থাকো, মাম্মামকে পাপা কোলে নেয় না তাই।
আমি তো বেবি তাই পাপা কোলে নেয়। মাম্মামও কী বেবি ?
ন্যান্সি দীর্ঘ শ্বাস ছেড়ে বললো, হুম মাম্মামও বেবি।
আহান ধ্রুবকে গাড়ির ভেতর দিয়ে পাশে তাকিয়ে দেখলো পাখি উল্টো দিকে হাঁটছে। কুয়াশায় মিলিয়ে যেতে চলেছে। আহান দৌড়ে এসে পাখি সামনে দাঁড়ালো।
পাখি ঠোঁট ফুলিয়ে মুখ ঘুরিয়ে নিলে আহান বললো, কী সমস্যা ?

পাখি ফুপিয়ে কেঁদে বললো, আমাকে কেউ আদর করে না, আমি থাকবো না।
আহান পাখির দুগাল ধরে নিজের দিকে করে বললো, আমার ছোট্ট বউটা বুঝি রাগ করেছে ?
পাখি মাথা উপর নিচ করে বুঝালো হ্যাঁ সে রাগ করেছে।
আহান পাখির কপালে নিজের অধর ছুঁইয়ে বললো, তুমি না ধ্রুবর মাম্মাম। নিজের ছেলের সাথে হিংসা করলে হবে ?
তুমি সমান সমান আদর করবে তাহলে আমি রাগ করবো না।
আচ্ছা ঠিক আছে, সমান সমান আদর করবো। এখন চলো আমাদের যেতে হবে।
পাখিকে কিছু বলার সুযোগ না দিয়ে তাকে কোলে তুলে নিলো আহান, এবার খুশি ?
পাখি হাত তালি দিয়ে বললো, ইয়ে কী মজা ?
আহান মনে মনে বললো, আর একটু বুঝদার হলে খুব অসুবিধা হত কী ?
গাড়ির কাছাকাছি এসে পা থমকে গেলো আহানের। কুয়াশা ভেদ করে দেখতে পেলো একটা প্রাইভেট কার এলোমেলো হয়ে এদিকে এগিয়ে আসছে। দেখে মনে হচ্ছে আহানের গাড়িতে ধাক্কা মারবে।

আহান চিৎকার করে বলে উঠলো, ধ্রুব।
পাখি ভয়ে আহানের গলা জড়িয়ে ধরলো শক্ত করে। গাড়িটা আহানের গাড়ি ধাক্কা দিতে গিয়েও একটুর জন্য পাশ কাটিয়ে গিয়ে রাস্তার পাশে গাছে ধাক্কা মারলো। চোখের সামনে এমন দৃশ্য দেখে আহান কিছুটা সময়ের জন্য থমকে গেলো। হুঁশ ফিরতেই পাখিকে কোল থেকে নামিয়ে দৌঁড়ে সেই গাড়ির দিকে গেলো। গাড়ির সামনের অংশ ভেঙে গুড়িয়ে গেছে। স্টিয়ারিং এর উপর মাথা রেখে পরে আছে একজন। আহান গাড়ির ভেতরে দেখলো আর কেউ আছে কিনা, না কেউ নেই। আহান স্টিয়ারিং থেকে মাথা তুলে মুখটা দেখে থমকে গেলো। এটা সে কাকে দেখছে ? কোনোদিন সামনাসামনি না দেখলেও মানুষটাকে চিনতে অসুবিধা হলো না আহানের।

বিড়বিড় করে বললো, মিস্টার খান ?
আহান যে নিজের বোধশক্তি হারিয়ে ফেলেছে। কী করবে, কী করা উচিত কিছু বুঝে উঠতে পারছে না সে ? তাজের সাথে এখানে এভাবে দেখা হবে কল্পনা করতে পারেনি আহান।
কী হয়েছে আহান ?
গাড়ি থেকে ন্যান্সি, ধ্রুব, রবি সবাই নেমে এসেছে। আহানের হুঁশ ফিরলো তাদের ডাকে। নিজেকে সামলে তাজের হাত ধরে পালস চেক করলো। না বেঁচে আছে এখনো, পালস চলছে।
রবি আমাকে হেল্প করো।
আহান আর রবি অনেক কষ্টে গাড়ি থেকে বের করলো তাজকে। পাখি কেমন অস্থির হয়ে উঠলো এতো রক্ত দেখে।

পাখি মাথা চেপে ধরে বললো, আপুনি আপুনি। আমার আপুনি, রক্ত, আপনি কাঁদে।
আহান যেনো অথৈ সাগরে পড়লো এবার। কাকে সামলাবে সে ? তাজকে দ্রুত হসপিটালে নেওয়া প্রয়োজন, এদিকে পাখি ডেস্পারেট হয়ে উঠেছে আবার। তার মনে পড়ে গেছে তিতিরের কথা। এদিকে তাজের মুখ দেখে স্তব্ধ হয়ে গেছে ন্যান্সি। সেও চিনতে পেরেছে তাজকে। যদিও হুবহু ছবির মতো নেই চেহারা, ছয় বছরে চেঞ্জ হয়েছে। কিন্তু যার ছবি বুকে নিয়ে তিতির রোজ সবার আড়ালে কাঁদতো, নিজের সন্তানের সাথে কথা বলতো যার ছবি দেখিয়ে, তাকে ন্যান্সির চিনতে অসুবিধা হলো না। তাছাড়া আহান তো প্রায় তিতির আর তাজের ছবি দেখায় ধ্রুবকে। ন্যান্সি আহানের দিকে তাকালে আহান অসহায় চোখে তাকালো তার দিকে। ন্যান্সি ধ্রুবকে শক্ত করে বুকে জড়িয়ে রেখেছে। ধ্রুবকে উল্টো দিকে মুখ করিয়ে কোলে নিয়েছে ন্যান্সি। বাচ্চা ছেলে রক্ত দেখে ভয় পাবে ভেবে। ধ্রুব বারবার দেখার চেষ্টা করলেও ন্যান্সি শক্ত করে জড়িয়ে রেখেছে তাকে।
আহান বললো, রবি অ্যাম্বুলেন্স ডাকার মতো সময় নেই। অ্যাম্বুলেন্স আসতে আসতে অনেক দেরি হয়ে যাবে।

চিন্তা করবেন না স্যার, আমি নিয়ে যাচ্ছি।
আহান ন্যান্সির দিকে তাকিয়ে বললো, মাম আমরা বাড়ি থেকে বেশি দূরে আসিনি। আমি ফোন করে দিচ্ছি বাড়ি থেকে গাড়ি আসলে তুমি ওদের নিয়ে বাড়ি চলে যাও।
আহান তাজকে গাড়ির পেছনের সীটে শুইয়ে দিয়ে মাথায় নিজের রুমাল বেঁধে দিতে দিতে বললো। ন্যান্সি তখনো পাথরের মতো দাঁড়িয়ে আছে। আহান তাড়াহুড়ো করে সব করার চেষ্টা করছে। রবি ড্রাইভিং সীটে বসে পড়েছে।
আহান দৌড়ে এসে পাখিকে জড়িয়ে ধরে বললো, শান্ত হয়ে যাও আমার পুতুল। তোমার আপুনি ভালো আছে।
আহান কোনদিকে যাবে বুঝতে পারছে না। পাখি নিজের মাথার চুল খামচে ধরে আপুনি আপুনি করে যাচ্ছে। ন্যান্সি ধ্রুবকে কোলে নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে, ধ্রুবও কেমন ছটফট করছে কী হয়েছে দেখার জন্য। নানা প্রশ্ন করেই যাচ্ছে।
রবি বললো, স্যার লোকটা মরে যাবে এভাবে থাকলে।
আহান চিৎকার করে উঠলো, নাহ উনাকে বাঁচতে হবে। উনার অনেক কিছু জানার বাকি আছে।

আহান পাখিকে ন্যান্সির কাছে এনে দাঁড় করালো, মাম পাঁচটা মিনিট সামলে রাখো এদের।
আহান দৌড়ে গাড়িতে গিয়ে বসে তাজের মাথা নিজের কোলে তুলে নিলো। সাদা রুমাল রক্তে ভিজে উঠেছে। রবি যত দ্রুত পারছে গাড়ি চালাচ্ছে। আহান বাড়িতে ফোন দিয়ে দ্রুত গাড়ি পাঠাতে বললো আর তাজের গাড়িতে ফোন বা অন্যকিছু পাওয়া যায় কিনা দেখতে বললো। তার ফ্যামিলির সাথে যোগাযোগ করার মতো।
আহান তাকালো তাজের মুখের দিকে। ধ্রুব মায়ের অনেকটা পেলেও বাবারও কিছুটা পেয়েছে। আহান সেটা আজ বুঝতে পারলো। তাজের গায়ের সাদা শার্টটা রক্তে ভিজে গেছে। ফোনের আওয়াজ পেয়ে আহান তাজের পকেটে খুঁজতে লাগলো। কারণ এটা তার ফোনের আওয়াজ নয়।

বিষাক্তফুলের আসক্তি পর্ব ২১

ফোন পেয়ে বের করে দেখলো ফোন অক্ষত আছে, সবুজ নামের কেউ কল দিচ্ছে। রিসিভ করলে আহান বুঝতে পারলো সবুজ তাজের পি.এ। আহান সব খুলে বলে তাজেকে কোন হসপিটালে নিচ্ছে তার নাম বলে দিলো। এদিকে ভয়ে সবুজের গলা শুকিয়ে গেলো। ফোন কাটতেই স্কিনে তিতিরের ছবি ভেসে উঠলো। আহান অবাক হয়ে তাকালো ফোনের স্কিনে তারপর তাজের মুখের দিকে। আহান যতটা জানে তাজ ভালোবাসতো না তিতিরকে, তবে তিতিরের ছবি কেনো তার ওয়ালপেপারে এখনো ?

বিষাক্তফুলের আসক্তি পর্ব ২৩

1 COMMENT

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here