তুমিময় বসন্ত পর্ব ৩৩

978

গল্পের পরের পর্ব পোস্ট করার সাথে সাথে পরতে চাইলে notification অন করে রাখুন ok বাটনে ক্লিক করে

তুমিময় বসন্ত পর্ব ৩৩
writer Mousumi Akter

“মারুফ আনান কটেজ “বেশ বড় বড় অক্ষরে সুন্দর করে ঝালাই দিয়ে লেখা বাড়ির গেটে।গেট খুলেই মুগ্ধ হলাম বাড়িটা দেখে।একদম পার্কের মতো সাজানো গোছানো যেনো সবকিছু।বাড়ির উপরে বিশাল বড় কৃষ্ণচূড়া গাছ।বকুল গাছের তলায় ফুল পড়ে শুকিয়ে আছে। গাছের দিকে তাকিয়ে দেখি গাছে সাদা সাদা বকুল ফুলে ছেয়ে আছে।গেটের ভেতরে বঁধানো পুকুর,আমগাছ,জামগাছ,সুপারিগাছ,নারকেল গাছ,জামরুল গাছ,লিচু গাছে,সফেদা গাছ,আমড়া গাছ,জলপাই গাছ,কাঠ বাদাম গাছ বিভিন্ন ফলের গাছে ভরপুর।

এ বাড়িটা বিশাল বড় জায়গা জুড়ে আছে।ডুপ্লেক্স বাড়িটা জনমানব শুণ্য হয়ে পড়ে আছে।ইস ভাবতেই খুব কষ্ট লাগছে আয়াসের মামা আর মামি এত কম বয়সে দুনিয়া ছেড়ে চলে গিয়েছেন।আজ উনাদের মৃত্যুবার্ষিকী।আজ ১৮ তম মৃত্যুবার্ষিকী।এ দিনে এ গ্রামের সব মানুষ কে খাওয়ানো হয় আর দোয়া অনুষ্টান করা হয়।সবার ই মন খারাপ সবাই মন খারাপ করে বসে আছে।আর আমি চারদিক ঘুরে ঘুরে দেখছি।হঠাত করে আম্মুর ভয়ানক কাঁন্নার আওয়াজ এ কেঁপে উঠলো আমার অন্তরআত্মা।আম্মু এইভাবে হাউমাউ করে কাঁদছে কেনো?একটায় আওয়াজ ভেষে আসছে তুমি কেনো আমাদের ছেড়ে চলে গেলে।আম্মু এসব বলে কাঁদছে কেনো?বাবার কি কিছু হয়েছে।

আরও গল্প পড়তে আমাদের গ্রুপে জয়েন করুন

আমি পা/গ/লের মতো ছুটতে ছুটতে গেলাম।আম্মু লেবু গাছের নিচে থাকা দুটো কবরের কাছে গিয়ে হাউমাউ করে কাঁদছে।আমি দূর থেকে দাঁড়িয়ে দেখছি বাবা আম্মুকে সামলানোর চেষ্টা করছে।আম্মুর কাঁন্না আমি কখনোই সহ্য করতে পারিনা।আম্মুর এই হৃদয়বিদারক কাঁন্না দেখে আমার ও চোখ দিয়ে পানি পড়ছে।কিছুক্ষণের মাঝেই বাবা আম্মুকে জোর করে নিয়ে গেলো।আম্মুকে কোনোভাবে সামলানো যাচ্ছেনা।আমি নিথর হয়ে দাঁড়িয়ে আছি। হঠাত এক অজানা যন্ত্রণায় বুকে ব্যাথা করছে।আম্মু কেনো এটা বললো তুমি কেনো আমাদের ছেড়ে চলে গেলে।আম্মুর কি ঘনিষ্ট কেউ এখানে সায়িত আছে।একে একে সবাই আসছে কবরের কাছে।মামা মামি, মামাতো ভাই,খালা,খালু সবাই এসে দাঁড়িয়ে কাঁদছে।

কারো কাঁন্না যেনো থামবার মতো নয়।আয়াসের আম্মা তো কেঁদেই যাচ্ছেন,আরহী, অয়ন,আয়াস সবাই কাঁদছে। এমন দৃশ্য আমি হতবাক।আয়াসের ফ্যামিলি কাঁদছে এটা নরমাল ব্যাপার।কিন্তু আমার ফ্যামিলি এত বেশী কাঁদছে কেনো?একে একে সবাই জায়গা ত্যাগ করলে আমি আনমনে হেঁটে গেলাম কবরের কাছে।সেখানে লেখা মরহুম মারুফ আনান এবং মরহুম রুহানা আনান।একরাশ মন খারাপ নিয়ে দাঁড়িয়ে দেখছি কবর দুইটা।আম্মুর কাঁন্না স্বাভাবিক ছিলো না একটুও ছিলো না।আম্মুর কি পরিচিত কেউ। আমি এতটা বেখেয়াল হয়ে পড়েছি গায়ের ওড়না এক পাশের থেকে পড়ে গিয়েছে আমার সে খেয়াল ই নেই।চোখ দুটো লাল হয়ে গিয়েছে আমার।

এরই মাঝে আয়াস এসে আমার পড়ে যাওয়া ওড়না কাধে তুলে দিয়ে বললো,
“–কি হয়েছে মুগ্ধতা?তুমি এখানে এভাবে দাঁড়িয়ে আছো কেনো?”
আয়াসের দিকে করূণ চোখে তাকিয়ে বললাম,
“–আচ্ছা আপনি কি কিছু জানেন।”
“-কোন ব্যাপারে?”
“–আম্মু কেনো এখানে এসে হাউমাউ করে কাঁদছিলো।আম্মুর কি কিছু হয়।”
আয়াস মৃদু হাসলো আমার দুই হাতের কব্জি ধরে বললো,
“মামা আর মামির জীবনের দূর্ঘটনা শুনে তোমার আম্মু সহ্য করতে পারে নি।আয়াস একটা দীর্ঘনিঃশ্বাস নিয়ে বললো পৃথিবীর কেউ ই সহ্য করতে পারে না সেই ইতিহাস শুনে।”
সন্দিহান ভাবে জিজ্ঞেস করলাম,
“সত্যি কি তাই।”
“তোমাকে কি মিথ্যা বলবো নাকি।”
“সবার মতো আমার ও ভীষণ কষ্ট হচ্ছে।ভীষণ যন্ত্রণা হচ্ছে।সবাই কাঁদছে কিন্তু আমি কাঁদতে পারছি না।”

“নো মন খারাপ প্লিজ,এদিকে এসো। চোখ বন্ধ করো একটা জিনিস দেখায় তোমাকে।”
বাঁধানো ঘাটের সিঁড়িতে গিয়ে চোখ বন্ধ করে বসলাম।আয়াস আমার গলায় একটা কিছু পরিয়ে দিলো।চোখ খুলে দেখি বকুল ফুলের মালা।একদম তাজা আর সাদা ধবধবে ফুল।দেখেই মন ভালো হয়ে গেলো আমার।
“আমি হেসে দিয়ে বললাম, কোথায় পেলেন।”
“আসার সময় দেখছিলাম বকুল গাছের দিকে তাকাচ্ছিলে।বুঝতে পারছিলাম এটা পেলে তুমি অত্যান্ত খুশি হবে।অয়নের হেল্প নিয়ে গাছ থেকে খুটে খুটে ফুল পেড়েছি।জানো কিভাবে পেড়েছি।পাশের বাড়ি থেকে মই এনেছি।গাছে মই দিয়েছি আর অয়নকে বলেছি মই এর গোড়া ভালো ভাবে চেপে ধরে রাখ।অয়ন মই এর গোড়া চেপে ধরে রেখেছিলো আর আমি মই বেয়ে বেয়ে উপরে উঠলাম।একটা ব্যাগ নিয়ে উঠেছিলাম।গাছ ঝাঁকি দিয়ছিলাম কিছু ফুল পড়েছিলো আর কিছু হাত দিয়ে ছিড়ে এনেছি।শুধু মাত্র তোমার খুশির জন্য।”
আয়াসের হাত মুষ্টিবদ্ধ করে ধরে বললাম,

“আমার খুশি নিয়ে খুব ভাবেন তাইনা?”
“হুম ভাবতেই তো হবে।সাত জন্মের একটা মাত্র বউ আমার।আর বউ কে খুশি রাখতে না জানা পুরুষ হলো অধম পুরুষ। এইবার আমাকে একটু খুশি করে দাও তো।”
“কিভাবে খুশি করবো।আমি তো ফুল পাড়তে পারিনা।”
“পুরুষ মানুষের কাছে ফুল হলো তার বউ।”
আমি হাসলাম তার কথা শুনে।চোখে মুখে আমার ভীষণ লাজুকতা।
আয়াস ঠোঁট এগিয়ে এনে বললো,
” গিভ মি কিস বউ।”
খানিক টা লজ্জা পেয়ে বললাম,
“পারবো না।”
“আরে আরে লজ্জা পেও না। আমিই তো তোমার একমাত্র বর।এখানে কেউ আসবে না।দাও দ্রুত দাও।কি হলো লেট করছো কেনো।না দিলে কিন্তু ছাড়বো না।এইভাবে চুপ আছো কেনো?এখন আমাকে কিস না দিলে আমি কিন্তু সবার সামনে কিস করে দিবো।বাই দ্যা ওয়ে আমার কিন্তু লজ্জা নেই।”

“এক নিঃশ্বাসে আর কত বকবক করবেন শুনি?”
“যতক্ষণ না চুমু খেতে পারছি।আমার খুদা পেয়েছে সেটা চুমুর খুদা।দাও বলছি।এমন করো কেনো?অন্য কারো কাছে কি চেয়েছে।ওই বউ দাওনা প্লিজ।”
জাস্ট একটা চুমু যে মানুষ এইভাবে চাইতে পারে আগে জানতাম বা।আয়াস কে বললাম,
“চোখ বন্ধ করেন আগে।”
আয়াস চোখ বন্ধ করলে আমিও চোখ বন্ধ করে আয়াসের গালে চুমু দিলাম।
চুমু পেয়েও সে বলে উঠলো,
“তুমি কিন্তু নির্দিষ্ট জায়গায় দাও নি।”
আমি আবার ও লজ্জা পেয়ে তাকালাম।
আয়াস পুকুরে পাথর ছুড়তে ছুড়তে বললো,
“দেখো তুমি কেমন দোল খাচ্ছো।”
আমি অবাক হয়ে বললাম,
“কই কোথায় দোল খাচ্ছি আমি।”

“ওই যে পানিতে তোমাকে দেখা যাচ্ছে।পাথর ছুড়ে মারলে পানি দোল খাচ্ছে সে সাথে তুমিও দোল খাচ্ছো।আমি বার বার এটাই দেখছি।”
এরই মাঝে আয়াসের আম্মার ডাক শোনা যাচ্ছে।আমাকে মিষ্টি সুরে ডাকছে।
“আয়াস কে বললাম,আমি খুব ভাগ্যবতী দেখেন মা বাবার ভীষণ ভালবাসা পেয়েছি,এখন শ্বশুরবাড়ি সহ স্বামির ভীষণ ভালবাসা পাচ্ছি।”
এটুকু বলে আমি মন খুলে হাসছি।
আয়াস আমার হাসি মুখের দিকে তাকিয়ে বললো,
“তুমি হাসলেও বিশ্বসুন্দরী লাগে জানো।”
“না জানিনা।সব মিথ্যা।আপনার বানানো কথা।”
“আচ্ছা তোমার বিশ্বাস হচ্ছে না।তাহলে কাকে জিজ্ঞেস করি বলোতো।আচ্ছা তাহলে আমাদের সামনে থাকা এই কাঠবাদাম গাছ টাকে জিজ্ঞেস করি কি বলো।”
আমি দু’সিঁড়ি নিচে নেমে পুকুরের পানি হাতে নিয়ে আয়াসের দিকে ছেটাতে ছেটাতে বললাম,
“কাউকে জিজ্ঞেস করতে হবেনা।আমি নিজেই জানি আমার বরের চোখে আমি কত সুন্দরী। তাইনা মিষ্টার আয়াস। ”

“আয়াস হাত দিয়ে পানি ঠেকানোর চেষ্টায় আছে।আর বারবার বলছে আহা!মুগ্ধতা আমি ভিজে যাচ্ছি কিন্তু।সত্যি ভিজে যাচ্ছি।”
“আমার খুশির জন্য না হয় একটু ভিজলেন ই তো ক্ষতি কি।ভিজুন না।”
হঠাত করে পুকুরের পাড়ে চোখ গেলো।অয়ন আর আরহী দুজন দু’গাছের সাথে হেলান দিয়ে দাঁড়িয়ে আছে।অয়ন আরহীকে বলছে হাতটা একটু বাড়াবে প্লিজ।আরহী হাতটা বাড়িয়ে ধরলো অয়নের দিকে।অয়ন এক মুঠো বকুল ফুল আরহীর হাতে দিয়ে বললো এই নাও।ভাইয়া ভাবির জন্য ফুল পাড়ছিলো।আমি কুড়ানোর সময় এক মুঠো প্যান্টের পকেটে চুরি করে রেখেদিয়েছিয়ালাম।আরহী ফুল গুলো নাকের কাছে নিয়ে চোখ বন্ধ করে ঘ্রাণ নিলো।অয়নের হাতে একটা ফুল দিয়ে বলো এটা আপনার জন্য।অয়ন হেসে দিলো।সাথে সাথে অয়নের গেজ দাঁত চিক চিক করে উঠলো।এরা দুই ভাই ই কিন্তু মেয়ে পটাতে ওস্তাত যা বুঝলাম।

এর ভাই আমাকে বশিকরণ করার মতো মন কেড়ে নিয়েছে।আর এই ছেলে এখন আরহীর মন কেড়ে নিবে।ভাবতে ভাবতে পিচ্ছিল সিঁড়িতে পা পিছলে পানিতে পড়ে গেলাম।পানিতে ঝপ করে শব্দ হওয়ায় আয়াস সাথে সাথে পানিতে নেমে আমাকে কোলে তুলে উপরে তুলে আনলো।আয়াস ভয় পেয়ে অয়ন কে জোরে চিৎকার দিয়ে ডাকলো।অয়ন বাড়ির সবাই কে ডাকলো।একে একে সবাই হাজির হয়ে গেলো।হঠাত পড়ে সামলাতে না পেরে খানিক টা পানি খেয়ে ফেলেছি আমি।মুহুর্তের মাঝে আয়াস আমাকে তুলে এনেছে বলে খুব বেশী অসুবিধা হয় নি।আয়াস আস্তে করে পেটে চাপ দিয়ে দিয়ে পানি বের করে ফেললো।ভয়ে বুক কাঁপছে আমার।আয়াসের আম্মা,বাবা,অয়ন,আরহী,আম্মু বাবা,খালামনি খালু সবাই আমাকে ঘিরে ধরে আমাকে ডাকছে।আমার আসলে তেমন কোনো অসুবিধা হয়নি।তবুও সবাই কেমন অস্হির হয়ে গিয়েছে।আয়াসের আম্মা বললো এ বাড়িতে আর মুগ্ধতাকে আনবোনা।জীবনের অনেক কিছু এ বাড়ি থেকে হারিয়েছে।এ বাড়িটায় অলুক্ষূণে।আয়াস আমার হাত শক্তভাবে চেপে ধরে রেখেছে।আর এক নজরে তাকিয়ে আছে আমার দিকে।ও যে খুব ভয় পেয়ে গেছিলো সেটা দেখেই বোঝা যাচ্ছে।আমি স্বাভাবিক আছি তবুও আয়াস আমাকে কোলে তুলে নিয়ে এলো।আমি আয়াসের গলা জড়িয়ে ধরে আছি।আয়াস হঠাত থেমে আমার দিকে তকিয়ে বললো,

তুমিময় বসন্ত পর্ব ৩২

“তুমি ঠিক আছো তো।জানো আমি কত ভয় পেয়ে গিয়েছিলাম।”
আমি মৃদু হেসে বললাম,আমাকে নামিয়ে দিন আপনার কষ্ট হবে।আমি ঠিক আছি।যার সাথে আপনই আছেন তার কি হবে বলুন তো।

তুমিময় বসন্ত পর্ব ৩৪

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here